Oops! It appears that you have disabled your Javascript. In order for you to see this page as it is meant to appear, we ask that you please re-enable your Javascript!

| |

ব্রেকিং নিউজঃ

অপেক্ষা শুধু দলের সবুজ সংকেতের

আপডেটঃ 1:09 pm | November 28, 2018

বাহাদুর ডেস্ক

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে অংশগ্রহণে আগ্রহী প্রার্থীদের মনোনয়নপত্র জমা দেওয়ার সময় শেষ হচ্ছে আজ বুধবার। সকাল ৯টা থেকে বিকেল ৫টা পর্যন্ত সংশ্লিষ্ট রিটার্নিং বা সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তার কাছে মনোনয়নপত্র জমা দিতে হবে। কেউ চাইলে এ সময়ের মধ্যে তার মনোনয়নপত্র অনলাইনের মাধ্যমেও জমা দিতে পারবেন। তবে পথসভার বাইরে প্রতীক বরাদ্দের আগে কোনো সভা-সমাবেশ করতে পারবেন না প্রার্থীরা। অপেক্ষা করতে হবে দলের সবুজ সংকেত পাওয়ার জন্যও।

এবারের নির্বাচনে ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগ ও দশম সংসদ নির্বাচন বর্জন করা বিএনপি এবং তাদের নেতৃত্বাধীন জোট ও ফ্রন্টভুক্ত সব কটি দল ভোটে প্রতিদ্বন্দ্বিতায় অংশ নিচ্ছে। এরই মধ্যে বড় দুটি দল দলীয় মনোনয়ন প্রায় চূড়ান্ত করেছে। এখন জোট ও ফ্রন্টের সঙ্গে আসন ভাগাভাগি সম্পন্ন হলেই প্রার্থী তালিকা চূড়ান্ত করে নির্বাচন কমিশনে (ইসি) জমা দেবে। তারপর প্রতীক বরাদ্দ দেবে কমিশন। তাই মনোনয়ন জমা দেওয়া প্রার্থীদের দলের সবুজ সংকেত না পাওয়া পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হবে।

এদিকে মনোনয়নপত্র জমার সময় শেষ হওয়ার আগ মুহূর্তে গতকাল এ-সংক্রান্ত একটি পরিপত্র জারি করে নির্বাচন কমিশন। এতে মনোনয়নপত্র দাখিলের শেষ দিন প্রার্থীদের জন্য কিছু করণীয় সম্পর্কে নির্দেশনা দেওয়া হয়। ইসির এ নির্দেশনায় বলা হয়েছে, মনোনয়নপত্র সংগ্রহ ও জমা দেওয়ার সময় প্রার্থী বা তার পক্ষে শোডাউন করা যাবে না। প্রার্থী বা তার পক্ষে পাঁচজনের বেশি লোক রিটার্নিং অফিসারদের কার্যালয়ে ভিড় করতে পারবেন না। নির্বাচন সামনে রেখে কোনো প্রার্থী জনসভা, মিছিল, মিটিং করতে পারবেন না। কেবল পথসভা করতে পারবেন। প্রার্থীদের পোস্টার হতে হবে সাদা-কালো। প্রতিটি পোস্টারের সংখ্যা, প্রেসের ঠিকানা, প্রকাশকের নাম দেওয়া বাধ্যতামূলক। না হলে সেসব পোস্টার নির্বাচন কমিশনের কাছে অবৈধ বলে বিবেচিত হবে। পোস্টারের সাইজ হতে পারবে সর্বোচ্চ ২৩ ইঞ্চি বাই ১৮ ইঞ্চি।

নির্দেশনায় বলা হয়, সংশ্লিষ্ট নির্বাচনী এলাকার ভোটার নন—এমন কাউকে পোলিং এজেন্ট করা যাবে না। নির্বাচনের ২৪ ঘণ্টা আগে পোলিং এজেন্টদের দুই কপি ছবি এবং নামের তালিকা রিটার্নিং অফিসারের কাছে জমা দিতে হবে। প্রার্থী হতে ২০ হাজার টাকা জামানত দিতে হবে। নগদ টাকায় জামানত নেওয়া হবে না। পে-অর্ডার বা ট্রেজারি চালানের মাধ্যমে রিটার্নিং অফিসারের অনুকূলে এ টাকা জমা দিতে হবে।

মনোনয়নপত্র জমা দেওয়ার সময় হলফনামা আকারে আটটি তথ্য দিতে হবে। ব্যয়ের উৎসের বিবরণী, আয়কর রিটার্নের কপি জমা দিতে হবে। মনোনয়ন ফরমে কোনো ভুল হলে প্রার্থিতা বাতিল হবে। তাই সম্ভাব্য প্রার্থীকে সতর্কতার সঙ্গে মনোনয়নপত্র পূরণ করতে হবে। মনোনয়ন দাখিলের আগে প্রার্থীকে অবশ্যই যেকোনো তফসিলি ব্যাংকে নতুন হিসাব খুলতে হবে। নির্বাচনের সমুদয় ব্যয় এ অ্যাকাউন্ট থেকেই করতে হবে। এই অ্যাকাউন্টের নম্বর, ব্যাংক ও শাখার নাম মনোনয়নপত্রে উল্লেখ করতে হবে।

নির্বাচনের ফলের গেজেটে প্রকাশের ৩০ দিনের মধ্যে প্রার্থীদের নির্বাচনী ব্যয়ের হিসাব রিটার্নিং অফিসার এবং কমিশনে জমা দিতে হবে। এ ছাড়া ব্যক্তিগত খরচের হিসাব ফল প্রকাশের সাত দিনের মধ্যে কমিশনে জমা দিতে হবে। প্রতীক বরাদ্দের আগে কোনো প্রচারকাজ চালানো যাবে না। এ ছাড়া কোনো প্রার্থীর মনোনয়নপত্র বাতিল বা গ্রহণের বিরুদ্ধে আপিল করা যাবে। লিখিত ছাড়া কোনো এজেন্টের অভিযোগ আমলে নেবে না কমিশন। কোনো ভোটার ব্যালট পেপার ব্যালট বাক্সে না ফেলে বাইরে নিয়ে এলে কমিশন তার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেবে। এ ছাড়া অন্য কোনোভাবে কোনো ব্যালট পেপার বাইরে চলে এলে ওই ব্যালট পেপার যে প্রদর্শন করবেন, কমিশন তার বিরুদ্ধেই ব্যবস্থা নেবে।

সব দলের অংশগ্রহণে অনুষ্ঠেয় জাতীয় নির্বাচনকে সামনে রেখে এরই মধ্যে কমিশন জানিয়ে দিয়েছে, নির্বাচনী পরিবেশ শান্তিপূর্ণ রাখতে নির্বাচনী এলাকায় পুলিশ, এপিবিএন এবং ব্যাটালিয়ান আনসার মোতায়েন করা হবে। তারা মোবাইল/স্ট্রাইকিং ফোর্স হিসেবে দায়িত্ব পালন করবে। প্রতিটি মোবাইল/স্টাইকিং ফোর্সের সঙ্গে একজন করে এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট নিয়োগ করা হবে। নির্বাচনী অপরাধের বিচারের জন্য প্রয়োজনীয় সংখ্যক বিচারিক ম্যাজিস্ট্রেটও নিয়োগ দেওয়া হবে। বিচারিক ম্যাজিস্ট্রেটরা যেকোনো অনিয়মের জন্য সর্বোচ্চ ছয় মাসের কারাদণ্ড এবং ৫০ হাজার টাকা জরিমানা বা উভয় দণ্ড দিতে পারবেন। ভোটের দিন নির্বাচনী এলাকায় সাধারণ ছুটি থাকবে। ভোটকেন্দ্রে ভোটগ্রহণের দায়িত্বে নিয়োজিত কর্মকর্তা ছাড়া কেউ মোবাইল ফোন ব্যবহার করতে পারবে না।

উল্লেখ্য, আগামী ৩০ ডিসেম্বর একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে। আজ ২৮ নভেম্বর মনোনয়নপত্র দাখিলের শেষ দিন। ২ ডিসেম্বর মনোনয়নপত্র বাছাই, প্রার্থিতা প্রত্যাহার ৯ ডিসেম্বর। আর প্রতীক বরাদ্দ দেওয়া হবে ১০ ডিসেম্বর।

Print Friendly, PDF & Email