Oops! It appears that you have disabled your Javascript. In order for you to see this page as it is meant to appear, we ask that you please re-enable your Javascript!

| |

ব্রেকিং নিউজঃ

গৌরীপুরে ইউএনও’র বাসভবনসহ ৫স্থানে পেট্টোল বোমা নিক্ষেপের এক বছর আজ

আপডেটঃ 3:53 pm | November 30, 2018

প্রধান প্রতিবেদক :
ময়মনসিংহের গৌরীপুরে যুবলীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলনের মঞ্চে আগুন, ইউএনও’র বাসভবনসহ ৫টি স্থানে পেট্টোল বোমা নিক্ষেপের এক বছর আজ শুক্রবার (৩০ নভেম্বর/১৮)। ঘটনার প্রেক্ষিতে মঞ্চ এলাকায় ১৪৪ধারা জারি করেন তৎকালীন ইউএনও মর্জিনা আক্তার। সম্মেলন স্থগিত ঘোষণা করেন জেলা যুবলীগের আহ্বায়ক অ্যাডভোকেট আজহারুল ইসলাম।
তৎকালীন ইউএনও (বর্তমান হবিগঞ্জের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক) মর্জিনা আক্তার বলেন, সন্তানদের নিয়ে সেই ভয়ার্ত দিনের কথা এখানো স্মরণ হলে শরীর শিউরে উঠে। সরকারি ভবনে পেট্টোল বোমা বিস্ফোরণের মতো ন্যাক্কারজনক ঘটনায় জড়িতদের চিহ্নিত করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি হওয়া উচিত।
স্থগিত সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয় ২০১৮সালের ২৮ ফেব্রুয়ারি ময়মনসিংহের একটি হোটেলে। সম্মেলনে সভাপতি পদে উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান মো. সানাউল হক ও সাধারণ সম্পাদক পদে পৌর কাউন্সিলার মোফাজ্জল হোসেন খান নির্বাচিত হন।
পেট্টোল বোমা বিস্ফোরণ ও ইউএনও’র বাসভবনে পেট্টোল বোমা নিক্ষেপের ঘটনায় নিরাপত্তা কর্মী মো. রফিকুল ইসলাম দাবি হয়ে অজ্ঞাতনামা আসামী দিয়ে গৌরীপুর থানায় ওইদিন মামলা দায়ের করেন। মামলাটির তদন্ত পান ময়মনসিংহ জেলা গোয়েন্দা পুলিশ ডিবি। পুলিশ এ ঘটনায় সে সময় আশরাফুল আলম (২৫), মো. আলম (২০) ও রনি (২০) কে গ্রেফতার ও পুলিশ হেফাজতে জিজ্ঞাসাবাদও করেন। গোয়েন্দা পুলিশের ইনচার্জ শাহ কামাল আকন্দ জানান, মামলার তদন্ত চলছে। নির্বাচনী কাজে ব্যস্ত থাকায় বিস্তারিত এই মুর্হূতে বলতে পারছি না।
সম্মেলন স্থগিত হওয়ায় ২০১৭সালের এই দিনে যুবলীগের নেতাকর্মীরা এমপি’র বিরুদ্ধে বিক্ষোভ কুশপুত্তলিকা দাহ, ঝাড়–-জুতা নিয়ে শহরে বিক্ষোভ মিছিল করে। আওয়ামী লীগ অফিসে ভাংচুর, বঙ্গবন্ধু, প্রধানমন্ত্রী ও এমপি’র ছবি ভাংচুর-অগ্নিসংযোগের অভিযোগে এমপি’র ব্যক্তিগত সহকারী কামরুজ্জামান কাউসার গৌরীপুর থানায় পৃথক মামলা দায়ের করেন। গৌরীপুর থানার অফিসার ইনচার্জ মোহাম্মদ আব্দুল্লাহ আল মামুন জানান, এ মামলাটির তদন্ত কাজ শেষ পর্যায়ে রয়েছে।
এ দিকে উপজেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক পৌর কাউন্সিলার মোফাজ্জল হোসেন খান বলেন, যারা যুবলীগের মঞ্চে অগ্নিসংযোগ ও শহরের ৫টি স্থানে পেট্টোল বোমা বিস্ফোরণ ঘটিয়েছিলো ওই দুুষ্কৃতিকারীরা জামাত-শিবিরের এজেন্ড। ওদের চিহ্নিত করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানাচ্ছি। সেই সাথে যুবলীগের নেতাকর্মীদের নামে দায়েরকৃত মামলার প্রত্যাহারের দাবি জানাই।
এ প্রসঙ্গে মুক্তিযোদ্ধা নাজিম উদ্দিন আহমেদ এমপি বলেন, মামলা প্রত্যাহার বিষয়ে আমার নিকট কেউ কিছু বলেনি। যেহেতু দলের আভ্যন্তরীণ বিষয় সেহেতু দলীয়ভাবেই বিষয়টি দেখা হবে। এটা কোন সমস্যা না।

Print Friendly, PDF & Email