Oops! It appears that you have disabled your Javascript. In order for you to see this page as it is meant to appear, we ask that you please re-enable your Javascript!

| |

থার্টিফার্স্ট উদযাপনে ডিএমপির নির্দেশনা

আপডেটঃ 1:45 pm | December 31, 2018

বাহাদুর ডেস্ক :

থার্টিফার্স্ট নাইটকে কেন্দ্র করে বেশ কিছু নির্দেশনা জারি করেছে ঢাকা মহানগর পুলিশ (ডিএমপি)। ৩১ ডিসেম্বর রাতে পটকা, আতশবাজি, বেপরোয়া গাড়ি, মোটরসাইকেল চালনাসহ যেকোনো ধরনের অশোভন আচরণ এবং বেআইনি কার্যকলাপ থেকে বিরত থাকতে অনুরোধ জানিয়েছে ডিএমপি।

ডিএমপি নির্দেশনা অনুসারে ঢাকা মহানগরের সার্বিক নিরাপত্তা ও আইনশৃঙ্খলার স্বার্থে রাস্তার মোড়, ফ্লাইওভার, রাস্তায়, ভবনের ছাদে এবং প্রকাশ্য স্থানে কোনো ধরনের জমায়েত, সমাবেশ, উৎসব করা যাবে না। নববর্ষ উদযাপন উপলক্ষে উন্মুক্ত স্থানে কোনো ধরনের অনুষ্ঠান বা সমবেত হওয়া যাবে না, নাচ, গান ও কোনো সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান করা যাবে না। কোথাও কোনো ধরনের আতশবাজি-পটকা ফোটানো যাবে না।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এলাকায় সন্ধ্যা ৬টার পর বহিরাগত কোনো ব্যক্তি বা যানবাহন প্রবেশ করতে দেওয়া হবে না। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় আবাসিক এলাকায় বসবাসরত শিক্ষক, কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের গাড়ি নির্ধারিত সময়ের পর পরিচয় প্রদান সাপেক্ষে নীলক্ষেত এবং শাহবাগ ক্রসিং দিয়ে প্রবেশ করতে পারবে। নির্দেশনা অনুসারে, গুলশান এলাকায় প্রবেশের জন্য কাকলি ক্রসিং এবং আমতলী ক্রসিং ব্যবহার করা যাবে। তবে নির্ধারিত সময়ের পর পরিচয় প্রদান সাপেক্ষে এ দুটি ক্রসিং দিয়ে প্রবেশ করতে হবে। একইভাবে সার্বিক নিরাপত্তার স্বার্থে গুলশান, বনানী, বারিধারা ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় আবাসিক এলাকায় যারা বসবাস করেন না, তাদের বর্ণিত এলাকায় গমনের ক্ষেত্রে নিরুৎসাহিত করা হয়েছে। সন্ধ্যা ৬টার পর হাতিরঝিল এলাকায় কাউকে অবস্থান করতে দেওয়া হবে না। গুলশান, বনানী ও বারিধারা এলাকায় বসবাসরতদের ৩১ তারিখ রাত ৮টার মধ্যে স্ব-স্ব এলাকায় ফিরতে বলা হয়েছে।

রাত ৮টার পর ঢাকায় কোনোবার খোলা রাখা যাবে না। ইংরেজি নববর্ষের প্রাক্কালে ৩১ তারিখ সন্ধ্যা ৬টা থেকে পরদিন ভোর ৬টা পর্যন্ত ঢাকার আবাসিক হোটেল, রেস্তোরাঁ, জনসমাবেশ ও উৎসবস্থলে লাইসেন্সকৃত আগ্নেয়াস্ত্র বহন করা যাবে না।

ট্রাফিক ডাইভারশন ও পরামর্শ : গুলশান, বনানী ও বারিধারায় প্রবেশের সব রাস্তা রাত ১০টা থেকে বন্ধ রাখা হবে। তবে ওই এলাকায় বসবাসরতদের প্রবেশের জন্য কামাল আতাতুর্ক অ্যাভিনিউ (কাকলি ক্রসিং) এবং আমতলী ক্রসিং (মহাখালী) খোলা রাখা হবে। সে ক্ষেত্রে গুলশান, বনানী ও বারিধারায় বসবাসরত নাগরিকদের রাত ১০টার মধ্যে ওই এলাকায় প্রবেশের জন্য অনুরোধ জানানো হচ্ছে। রাত ১০টা থেকে গুলশান, বনানী ও বারিধারা এলাকায় প্রবেশের ক্ষেত্রে তেজগাঁও শিল্পাঞ্চল এলাকা-ফিনিক্স রোড ক্রসিং, বনানী ১১ নম্বর রোড ক্রসিং, চেয়ারম্যান বাড়ি ক্রসিং, শুটিং ক্লাব, বাড্ডা লিংক রোড, ডিওএইচএস বারিধারা-ইউনাইটেড হাসপাতাল ক্রসিং ও নতুন বাজার ক্রসিং ব্যবহার করা যাবে না, তবে ওই এলাকা থেকে বের হওয়ার ক্ষেত্রে এসব ক্রসিং ব্যবহার করা যাবে। একইভাবে ৩১ ডিসেম্বর সন্ধ্যা ৬টা থেকে পরদিন ভোর ৬টা পর্যন্ত শুধু শাহবাগ ক্রসিং এবং নীলক্ষেত ক্রসিং দিয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র-শিক্ষক ও কর্মকর্তা-কর্মচারী পরিচয়পত্র দেখিয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এলাকায় যানবাহন নিয়ে প্রবেশ করতে পারবে। পলাশী ক্রসিং, ভাস্কর্য ক্রসিং, বকশীবাজার ক্রসিং, রমনা চত্বর ক্রসিং, দোয়েল চত্বর ক্রসিং এবং শহীদুল্লাহ হল ক্রসিং দিয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এলাকায় সব ধরনের গাড়ি প্রবেশ নিষিদ্ধ থাকবে। হাইকোর্ট পয়েন্ট থেকে আসা সব গাড়ি দোয়েল চত্বরের বামে মোড় নিয়ে শহীদুল্লাহ হল হয়ে চানখাঁরপুল ক্রসিং দিয়ে বের হয়ে যেতে পারবে। বেপরোয়া, মদ্যপ ও বিপজ্জনক অবস্থায় কাউকে গাড়ি না চালাতে অনুরোধ করা হয়েছে।

জরুরি প্রয়োজনে ফোন : ডিসি ট্রাফিক (নর্থ) : ০১৭১৩৩৭৩২২৫, এডিসি ট্রাফিক (নর্থ) : ০১৭১৩৩৭৩২২৬, এসি ট্রাফিক (গুলশান) : ০১৭১৩৩৯৮৪৯৭, এসি ট্রাফিক (উত্তরা) : ০১৭১৩৩৯৮৪৯৮, ডিসি ট্রাফিক (সাউথ) : ০১৭১৩৩৭৩২২৩, এডিসি ট্রাফিক (সাউথ) : ০১৭১৩৩৭৩২২৪, ডিসি (গুলশান) : ০১৭১৩৩৭৩১৬৬ ও ডিসি (উত্তরা) : ০১৭১৩৩৭৩১৫৬।

Print Friendly, PDF & Email