Oops! It appears that you have disabled your Javascript. In order for you to see this page as it is meant to appear, we ask that you please re-enable your Javascript!

| |

ব্রেকিং নিউজঃ

নারী বৈষম্য দূরীকরণ ও কিছু প্রশ্ন || মালবিকা পাল

আপডেটঃ 10:06 pm | March 12, 2019

নারী বৈষম্য দূরীকরণ, নারী অধিকার প্রতিষ্ঠা করার জন্য সরকারিভাবে অনেক পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে। কিছু কিছু ক্ষেত্রে এ পদক্ষেপগুলো ফলপ্রসু হয়েছে। কিন্তু সার্বিক দিকে হচ্ছে কি? একজন নারী চাইলেই কি যখন খুশি তখন ঘর থেকে বের হতে পারছে? সে কি যৌন হয়রানির ভয়ে দূরে একা বের হতে পারছে? কর্মস্থলে তাকে কেন বারবার পুরুষের মতোই সে কাজ করতে সক্ষম তা প্রমাণ করতে হয়? নারী কেন নিজের পরিচয়ে পরিচিত হতে পারে না?
এ প্রশ্নের উওরগুলো আমরা কখনো খুঁজে দেখি কি?

আসলে জন্মলগ্ন থেকে এ বিভেদটা সৃষ্টি হয়। ভাবছেন কিভাবে? যখন একটা শিশুর জন্ম হয় তখন জানতে চায় কি বাবু হইছে! মেয়ে নাকি ছেলে? শিশুটি যখন স্কুলে যায় তখন একদিকে মেয়ে আর অন্যদিকে ছেলেদের বসানো হয়। আমাদের দেশের মেসে, মেয়ে হোস্টেল, বিশ্ববিদ্যালয়ের হলগুলোতে ডুকবার ও বাহিরে যাওয়ার জন্য মেয়েদের নির্দিষ্ট সময়সীমা বেঁধে দেওয়া হয়েছে | কিন্তু ছেলেদের জন্য এরকম সময়সীমা থাকে না |

পরিবহনগুলোতে উঠার সময় অনেক কন্ডাক্টর মহিলাদের হাতে ধরে বা পিঠে হাত দিয়ে বাসে তোলে। মেয়েদের জন্য পাবলিক টয়লেটগুলো নিরাপদ না। কিছু দিন আগে বাল্য বিবাহ নিরসনের জন্য সরকার থেকে হেল্পলাইন নাম্বার দেওয়া হয় । এতে ব্যাপক আলোড়ন সৃষ্টি হয় এবং ফলপ্রসূ হয়।

আমরা নারী অধিকার প্রতিষ্ঠা করতে পেরেছি এবং বৈষম্যও আংশিক দূর করেছি। কিন্তু আমারা কি নিরাপদ আছি?আমাদের কি মনস্তাত্ত্বিক পরিবর্তন এসেছে? আমাদের দেশ গণতান্ত্রিক। এ দেশে কেন প্রধানমন্ত্রীর শেখ হাসিনা নাম বলার আগে বঙ্গবন্ধু কন্যা বলা হয়? কেন বেগম খালেদা জিয়ার নাম বলার আগে জিয়াউর রহমানের স্ত্রী বলা হয়? যেদিন আমরা মনস্তাত্ত্বিক দিক দিয়ে স্বচ্ছ থাকবো সেদিন থেকে সুষ্ঠুভাবে নারী বৈষম্যদূরীকরণ এবং নারী অধিকার প্রতিষ্ঠা হবে। আমরাও নিরাপদে থাকবে।

লেখক ঃ মালবিকা পাল, অর্নাস তৃতীয় বর্ষ, ব্যবস্থাপনা বিভাগ, গৌরীপুর সরকারি কলেজ |

//আর/জিরোফোর//

Print Friendly, PDF & Email