Oops! It appears that you have disabled your Javascript. In order for you to see this page as it is meant to appear, we ask that you please re-enable your Javascript!

| |

দাওয়াত না পেয়ে বর্ষবরণ অনুষ্ঠানে ছাত্রলীগের হামলা

আপডেটঃ 7:43 pm | April 18, 2019

বাহাদুর ডেস্ক :

সিলেটের ঐতিহ্যবাহী মদন মোহন কলেজের তারাপুর ক্যাম্পাসের শিক্ষার্থীদের উদ্যোগে আয়োজিত বর্ষবরণ অনুষ্ঠানে ছাত্রলীগ দাওয়াত না পেয়ে হামলা ও ভাংচুর চালিয়েছে। বৃহস্পতিবার দুপুরে কলেজ ক্যাম্পাস সংলগ্ন আলী বাহার চা বাগানের বাংলোয় আয়োজিত এ বর্ষবরণ অনুষ্ঠান হামলা চালিয়ে পণ্ড করে দেয় তারা।

এ সময় ছাত্রলীগ নেতা-কর্মীদের থামাতে গেলে কলেজের দুই শিক্ষককে গালাগাল করে হামলাকারীরা। তবে মদন মোহন কলেজ ছাত্রলীগের নেতারা হামলার বিষয়টি অস্বীকার করেছেন।

নগরীর লামাবাজারে মদন মোহন কলেজের প্রধান ক্যাম্পাসের পাশাপাশি তারাপুরে আরেকটি ক্যাম্পাস রয়েছে। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, তারাপুর ক্যাম্পাসের অ্যাকাউন্টিং ও ম্যানেজমেন্ট বিভাগের শিক্ষার্থীরা বৃহস্পতিবার আলী বাহার চা বাগানের বাংলোয় বর্ষবরণ অনুষ্ঠানের আয়োজন করে। বেলা দেড়টার দিকে ছাত্রলীগের ৩০-৩৫ জনের একটি গ্রুপ সশস্ত্র মিছিল নিয়ে অনুষ্ঠানস্থলে উপস্থিত হয়ে হামলা ও ভাংচুর চালায়। এ সময় তারা বাংলোর কাঁচের দরজা-জানালা, অনুষ্ঠানের মঞ্চ, চেয়ার ও সাইন্ড সিস্টেম ভাংচুর করে। তাদের আটকাতে গেলে মদন মোহন কলেজের প্রভাষক পংকজ কান্তি দত্ত ও তামান্না ইসলামকে গালাগাল করে হামলাকারীরা। হামলায় অনুষ্ঠানের জন্য ভাড়া করে আনা সাউন্ড সিস্টেম প্রতিষ্ঠানের কর্মী শিহাবসহ ৪-৫ জন আহত হয়। মদন মোহন কলেজের প্রধান ক্যাম্পাস ছাত্রলীগের একটি পক্ষকে দাওয়াত না দেওয়ায় এই হামলা চালানো হয়েছে বলে একাধিক সূত্র জানিয়েছে।

তবে বর্ষবরণ অনুষ্ঠানে হামলার সঙ্গে ছাত্রলীগের সংশ্লিষ্টতার অভিযোগ অস্বীকার করেছেন মদন মোহন কলেজ ছাত্রলীগের সভাপতি মাহমুদুল হাসান সানি। তিনি বলেন, কলেজের মূল ক্যাম্পাসে আজ পরীক্ষা চলছে। ছাত্রলীগের সবাই এখানে রয়েছে। ওই অনুষ্ঠানের দিকে কেউ যায়নি। ছাত্রলীগের নামে অপপ্রচার চালানো হচ্ছে।

অনুষ্ঠানের আয়োজকেরা জানান, তারাপুর ক্যাম্পাসের ছাত্রলীগের নেতাকর্মীদের দাওয়াত দিয়ে এই অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। আয়োজনে ছাত্রলীগের অনেক নেতাকর্মীও সম্পৃক্ত ছিল।

এ প্রসঙ্গে বিমানবন্দর থানার ওসি এসএম শাহাদাত হোসেন বলেন, অনুষ্ঠান আয়োজনের সঙ্গে ছাত্রলীগের একটি পক্ষ জড়িত ছিলো। ছাত্রলীগের আরেক পক্ষকে দাওয়াত না দেওয়ায় তারা হামলা চালিয়েছে। হামলার পর আয়োজকরা অনুষ্ঠান বন্ধ করে দেন।

মদন মোহন কলেজের তারাপুর ক্যাম্পাসের ইনচার্জ অধ্যাপক জয়ন্ত দাস বলেন, ছাত্ররা অনুমতি নিয়ে এই অনুষ্ঠানের আয়োজন করেছিলো। হামলা প্রসঙ্গে তিনি বলেন, শুনেছি গাড়ি পার্কিং নিয়ে তাদের মধ্যে ঝামেলা হয়েছে।

//টি.কে-ওয়েভ-ইন//

Print Friendly, PDF & Email