Oops! It appears that you have disabled your Javascript. In order for you to see this page as it is meant to appear, we ask that you please re-enable your Javascript!

| |

আ.লীগে আটঘাট, প্রস্তুত বিএনপিও

আপডেটঃ 11:10 am | November 03, 2019

বাহাদুর ডেস্ক :

ঢাকা উত্তর-দক্ষিণ ও চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার প্রস্তুতি নিচ্ছে নির্বাচন কমিশন। এই ৩ সিটি নির্বাচনেই অংশগ্রহণ করবে বলে সিদ্ধান্ত নিয়েছে বিএনপি। আর বিএনপির অংশগ্রহণকে চ্যালেঞ্জ হিসেবে দেখছে আওয়ামী লীগ।

ঢাকা উত্তর-দক্ষিণ ও চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনে সাধারণ নির্বাচন হয়েছিল ২০১৫ সালের ২৮ এপ্রিল। ৩ সিটিরই জনপ্রতিনিধিদের মেয়াদ শেষ হওয়ার পথে। আইন বলছে, ঢাকার দুই সিটিতে ভোটের আয়োজন করতে হবে এ বছরের নভেম্বর থেকে আগামী বছরের মে মাসের মধ্যে। আর চট্টগ্রাম সিটিতে ভোট হতে হবে আগামী বছরের ফেব্রুয়ারি থেকে আগস্টের মধ্যে।

৩ সিটি নির্বাচনের প্রাথমিক প্রস্তুতি হিসেবে ভোটার তালিকা হালনাগাদ, নির্বাচনী সামগ্রীর পরিমাণ নির্ধারণ এবং সীমানা জটিলতা সম্পর্কে তথ্য নেওয়াসহ আনুষঙ্গিক কাজে এরই মধ্যে হাত দিয়েছে নির্বাচন কমিশন।

নির্বাচন কমিশনার রফিকুল ইসলাম বলেন, আগে থেকে যদি প্রস্তুতি না নেওয়া যায় তাহলে শিডিউল ঘোষণার পর যে সময় থাকে তার মধ্যে এগুলো সমাধান করা সম্ভব হয় না। এসব প্রস্তুতি শেষ করেই ভোটের দিনক্ষণ নির্ধারণ নিয়ে আলোচনা শুরু হবে।

রফিকুল ইসলাম আরো বলেন, ১৮০ দিনের মধ্যে যাতে নির্বাচন করা যায় তার জন্য কমিশন বসে একটা সিদ্ধান্ত নেবে। তারিখ নির্ধারণ করে আমরা নির্বাচন করতে পারি। ৩ সিটিতেই ইভিএমের মাধ্যমে ভোটগ্রহণের কথা ভাবছে নির্বাচন কমিশন।

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেন, সামনে সিটি করপোরেশন নির্বাচন। এ নির্বাচনে জিততে হবে। গতবার প্রতিপক্ষ ছিল না বলে আপনারা বিষয়টি বুঝতে পারেননি। ভেবেছেন জেতাটা সহজ হয়ে গেছে। এবারকার নির্বাচন খুবই চ্যালেঞ্জিং হবে, আমাদের প্রতিপক্ষরাও আটঘাট বেঁধে নামবে।

তবে একাদশ সংসদ নির্বাচনের পর থেকে এ পর্যন্ত স্থানীয় সরকারের প্রায় সবই বর্জন করেছে বিএনপি। তবে ৩ সিটি নির্বাচনে অংশগ্রহণ করার সিদ্ধান্ত রয়েছে দলটির।

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায় বলেন, আমরা স্থানীয় সরকার নির্বাচনে অংশগ্রহণ করব। পরিবেশটা যদি স্থিতিশীল হয় তাহলে আমাদের নির্বাচনের প্রস্তুতির কোনো ঘাটতি নেই। বাংলাদেশে বিএনপির মতো দলকে কোনো নির্বাচনের প্রস্তুতির দরকার নেই। শুধু জনগণ ভোটটা দিতে পারবে—এটাই নিশ্চয়তা থাকতে হবে।

টি.কে ওয়েভ-ইন

Print Friendly, PDF & Email