Oops! It appears that you have disabled your Javascript. In order for you to see this page as it is meant to appear, we ask that you please re-enable your Javascript!

| |

ব্রেকিং নিউজঃ

বহুদলীয় গণতন্ত্র বলতে যদি যুদ্ধাপরাধী, যাদের রাজনীতি নিষিদ্ধ ছিল, তাদের রাজনীতি করার সুযোগ করে দেয়াটাই যদি বহুদলীয় গণতন্ত্র হয়, তা হলে আমার কিছু বলার নেই-প্রধানমন্ত্রী

আপডেটঃ 1:12 pm | February 04, 2018

বাহাদুর ডেস্ক :

রোববার রাজধানীর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় আয়োজিত এক শিক্ষা সমাবেশে বক্তব্য রাখেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

সমাবেশে তিনি বলেন, স্বাধীনতাবিরোধীদের সুযোগ করে দেয়ার জন্যই সাবেক রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমান বহুদলীয় গণতন্ত্র ফিরিয়ে এনেছিলেন। তার মতে, অবৈধভাবে ক্ষমতা দখলকারীরা দেশকে কিছু দিতে পারে না।

শেখ হাসিনা বলেন, অনেকে বলেন- জিয়াউর রহমান নাকি দেশে বহুদলীয় গণতন্ত্র ফিরিয়ে এনেছিলেন। কিন্তু তিনি শুধু স্বাধীনতাবিরোধীদের সুযোগ করে দিতেই সেই ব্যবস্থা শুরু করেন। এখন বহুদলীয় গণতন্ত্র বলতে যদি যুদ্ধাপরাধী, যাদের রাজনীতি নিষিদ্ধ ছিল, তাদের রাজনীতি করার সুযোগ করে দেয়াটাই যদি বহুদলীয় গণতন্ত্র হয়, তা হলে আমার কিছু বলার নেই।

এ সময় বর্তমানে দেশ পিছিয়ে পড়ার বিষয়ে আক্ষেপ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, স্বাধীন হওয়ার পর একটি বিধ্বস্ত দেশকে দাঁড় করাতে বঙ্গবন্ধু মাত্র সাড়ে তিন বছর সময় পেয়েছিলেন। তিনি যদি আরও ৩-৪ বছর সময় পেতেন তা হলে দেশ পিছিয়ে থাকত না- এগিয়ে যেত। তার মৃত্যুর পর আওয়ামী লীগের জীবন থেকেও ২১ বছর ঝরে গেছে নিষ্ফলা হিসেবে।

বাংলাদেশের শিক্ষাব্যবস্থায় বঙ্গবন্ধুর অবদান তুলে ধরে তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধু বলেছিলেন- শিক্ষা খাতে বিনিয়োগ সবচেয়ে বড় বিনিয়োগ। ধ্বংসস্তূপের ওপর দাঁড়িয়ে মাত্র সাড়ে তিন বছরে দেশকে কীভাবে পরিচালিত করতে হবে তার দিকনির্দেশনা তিনি দিয়ে গিয়েছিলেন। এ জন্য তিনি প্রথম শিক্ষাব্যবস্থায় হাত দেন। তিনিই প্রাথমিক শিক্ষাকে অবৈতনিক করেন। মাত্র ৯ মাসে তিনি সংবিধান উপহার দেন। যেখানে শিক্ষার কথা উল্লেখ করেন।’

শেখ হাসিনা বলেন, শিক্ষার ওপর গুরুত্ব দিয়ে বঙ্গবন্ধু দেশকে এগিয়ে নিতে চেয়েছিলেন। আমরা তার স্বপ্ন পূরণে কাজ করে যাচ্ছি। আওয়ামী লীগ সরকার ক্ষমতায় আসার পর অনেক বিদ্যালয় জাতীয়কারণ ও শিক্ষকদের চাকরি সরকারি করেছে। আমরা ক্ষমতায় এসে দেশের কোনো কোনো গ্রামে স্কুল প্রয়োজন এবং যোগাযোগ ব্যবস্থা খারাপ সে বিষয়ে একটি জরিপ করেছিলাম। সেই ভিত্তিতে বিভিন্ন স্থানে প্রায় দেড় হাজার স্কুল করেছিলাম। আমরাই একেকটি জেলাকে নিরক্ষরমুক্ত করে সরকারিভাবে ঘোষণা করার উদ্যোগ নিয়েছিলাম। তবে আমরা দেশের উন্নয়নে যখনই কাজ করি তখনই একটি আঘাত আসে। জাতির পিতাকে হত্যার মধ্য দিয়ে সেই আঘাত শুরু হয়।

তিনি বলেন, জাতির পিতা সবাইকে ঐক্যবদ্ধ করতে চেয়েছিলেন। তিনি যদি ক্ষমতাকে বিকেন্দ্রীকরণ করতে পারতেন তা হলে দেশের তৃণমূলপর্যায়ে আজ অনেক উন্নয়ন হতো। ক্ষমতায় এসে আমরা শিক্ষারও ওপর গুরুত্ব দিয়েছিলাম। এটি ছাড়া কোনো জাতি শিক্ষিত হতে পারে না, এগিয়ে যেতেও পারে না। ড. কুদরত-ই-খোদা শিক্ষা কমিশন বঙ্গবন্ধুর হাতে রিপোর্ট দিয়েছিলেন। কিন্তু তিনি পদক্ষেপ নেওয়ার সময় পাননি। তার আগেই তাকে হত্যা করা হয়।

Print Friendly, PDF & Email