Oops! It appears that you have disabled your Javascript. In order for you to see this page as it is meant to appear, we ask that you please re-enable your Javascript!

| |

কাবিনে দেনমোহর জালিয়াতির ঘটনায় ইসলামপুরের পাথর্শী ইউনিয়ন নিকাহ রেজিষ্ট্রারসহ তিনজনের নামে মামলাঃ সংবাদ সম্মেলন

আপডেটঃ 4:18 pm | February 18, 2018

এম এ আজিজ, ময়মনসিংহ ব্যুরো ॥

জামালপুরের ইসলামপুর উপজেলার পাথর্শী ইউনিয়ন নিকহা রেজিস্ট্রারের কাবিন জালিয়াতির ঘটনায় সৃষ্ট মামলা বাতিলের দাবীতে সংবাদ সম্মেলন করেছে ভুক্তভোগী সাকিব হাসান। রবিবার ময়মনসিংহ প্রেসকাবে এ সংবাদ সম্মেলন করা হয়। সম্মেলনে দাবী করা হয়, গত ২৬/৪/১৭ সালে জামালপুর জেলার ইসলামপুর উপজেলার উত্তর কিছমত জাল্লা গ্রামের শাহীনুর ইসলামের মেয়ে সাদিয়া আফরোজ এর সাথে ময়মনসিংহের কোতোয়ালী থানার অলিপুর গ্রামের হীরা মিয়ার ছেলে সাকিব হাসানের বিয়ে হয়। ইসলামপুর উপজেলার পাথর্শী ইউনিয়ন নিকহা রেজিস্ট্রার কাজী মাওলানা মোঃ মোসলেম উদ্দিন এ বিয়ে নিবন্ধন/ কাবিন করেন। কাবিনে ১,৬৫,০০০/- দেনমোহর দার্য এবং কাবিনে লিপিবদ্ধ করা হয়। যা পাথর্শী ইউনিয়ন নিকহা রেজিস্ট্রার কাজী মাওলানা মোঃ মোসলেম উদ্দিন তার নিজের ভিজিটিং কার্ডে উল্লেখ করেন বহি নং ০২/১৬ তাং ২৬/১৭ ইং, পৃষ্ঠা নং ৭৫, দেনমোহর ১,৬৫,০০০/-টাকা নিজ হাতে লিখে ছেলে পকে দেন। পরবর্তীতে এ বিয়ে নিয়ে মামলার সৃষ্ঠি হলে উল্লেখিত নিকাহ রেজিস্ট্রার কন্যা ও কন্যার পিতার পালম্বন করে অবৈধ সুবিধা গ্রহণ করে উল্লেখিত কাবিনে ১১,৬৫,০০০/- টাকা উল্লেখ করেন কাবিনের নকল প্রদান করেন। যার উপর নির্ভর করে সাদিয়া আফরোজ জামালপুর নারী ও শিশু জজ আদালতে মামলা নং-৩৫৬/১৭ দায়ের করে। মামলাটি আদালত জুডিশিয়াল তদন্ত দিলে তদন্তে মিথ্যা প্রমাণিত হলে জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্র্যাট মোহাম্মদ নাজমূল হক প্রতিবেদন দাখিল করেন। এরপরও সাদিয়া আফরোজের নারাজীর প্রেেিত আদালত মামলাটি গ্রহণ করে। মামলায় আসামী সাকিব হাসানের বিরুদ্ধে গ্রেফতারী পরোয়ানা জারী হলে তিনি জামিন নিয়ে এবং কাবিন জালিয়াতির অভিযোগে ময়মনসিংহ সদর সিনিয়র সহকারী জজ আদালতে মামলা করেন। যার নং ২৮/১৮ইং। মামলায় নিকাজ রেজিষ্ট্রার কাজী মাওলানা মোসলেম উদ্দিন, শাহিনুর ইসলাম ও সাদিয়া আফরোজকে আসামী করা হয়েছে। আদালত মামলাটি গ্রহণ করে আসামীদের বিরুদ্ধে সমনজারী ও আদালতে হাজির হওয়ার নির্দেশ প্রদান করেন।
কাবিনে দেনমোহরের পরিমাণ জালিয়াতির ঘটনায় নিকাহ রেজিষ্ট্রার সাংবাদিকের প্রতি প্তি হয়ে বলেন, মামলার কথা মামলায় বলব। আপনাকে কেন বলব। তবে কাবিনে উল্লেখিত দেনমোহরের পরিমান কোনটা ঠিক এ প্রসঙ্গে প্তি হয়ে তিনি বলেন আমি বলতে পারবা না।

Print Friendly, PDF & Email